গ্রামীণ টেলিকম: শ্রমিক-কর্মচারীদের মামলায় আইনজীবীর ফি ১৬ কোটি টাকা

[ad_1]

এর ধারাবাহিকতায় আজ বিষয়টি ওঠে। শ্রমিক–কর্মচারী ইউনিয়নের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. ইউসুফ আলী। ইউসুফ আলীর পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী আহসানুল করিম, মোহাম্মদ সাঈদ আহমেদ ও রবিউল আলম। গ্রামীণ টেলিকমের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মুস্তাফিজুর রহমান খান।

ক্রম অনুসারে বিষয়টি উঠলে গ্রামীণ টেলিকম এবং শ্রমিক–কর্মচারী ইউনিয়ন পৃথক হলফনামা দাখিল করে। শুনানির একপর্যায়ে আইনজীবী আহসানুল করিম বলেন, ‘শ্রমিকেরা স্বেচ্ছায় ৬ পার্সেন্ট হারে অর্থ দিয়েছেন। এই ৬ পার্সেন্ট অর্থ আইনজীবী ফি ও অন্যান্য খরচ হিসেবে ট্রেড ইউনিয়নের ব্যাংক হিসাবে জমা হয়।’ আদালত বলেন, ‘শ্রমিকদের পাওনা বেতন-ভাতাদি তাঁদের ব্যাংক হিসাবে ঢুকবে, ট্রেড ইউনিয়ন আসে কীভাবে?’ তখন আহসানুল করিম বলেন, ‘শ্রমিক-ট্রেড ইউনিয়ন আলোচনার মাধ্যমে ওই সিদ্ধান্ত নেয়।’

আদালত বলেন, ‘স্পষ্ট করে বলেননি, আইনজীবী কত টাকা ফি নিয়েছেন। এ নিয়ে লুকোচুরির কী আছে?’ এ সময় আহসানুল করিম বলেন, ‘আইনজীবীর ফি হিসেবে ১৬ কোটি টাকা দেওয়া হয়। ৬ পার্সেন্ট হারে মোট ২৬ কোটি টাকার মধ্যে বাকি ১০ কোটি টাকা ট্রেড ইউনিয়নের কাছে জমা রয়েছে।’

[ad_2]

Source link

Leave a Comment