উপাত্ত সুরক্ষা আইনের খসড়ায় কেন ডিএসএর ‘ছায়া’

[ad_1]

উপাত্ত সুরক্ষা আইন, ২০২২ (খসড়া) চলতি বছরের এপ্রিল মাসে ওয়েবসাইটে দিয়ে প্রস্তাবিত আইনটি নিয়ে ‘সর্বসাধারণের’ মতামত জানতে চেয়েছিল তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ। এর ফলে গণমাধ্যমসহ একাধিক দেশি-বিদেশি সংস্থা আইনটি নিয়ে তাদের আপত্তি-আশঙ্কার কথা জানায়। এরপর গত ১৬ জুলাই আইসিটি বিভাগ তাদের ওয়েবসাইটে আইনের নতুন একটি খসড়া প্রকাশ করে এবং পরের দিন ঢাকার একটি হোটেলে অংশীজনদের নিয়ে পরামর্শ সভা করে।

সেই সভায় লেজিসলেটিভ ও সংসদবিষয়ক বিভাগের সাবেক সচিব মো. শহীদুল হক তাঁর উপস্থাপনায় বলেন, খসড়াটি নিয়ে ১৯টি প্রতিষ্ঠান মতামত দিয়েছে। কিন্তু ওই দিন সভায় অংশীজনদের বক্তব্য থেকে জানা যায়, নতুন খসড়াতেও তাদের মতামতের খুব বেশি প্রতিফলন নেই। এ ঘটনা থেকে বোঝা যাচ্ছে, তেমন একটা পরিবর্তন ছাড়াই সরকার আইনটি পাস করার পরিকল্পনা করছে। সরকারের এই ‘অনড়’ অবস্থানের কারণে এ প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক যে এই আইনে কী এমন আছে, যা পরিবর্তন করতে তাদের এত ‘অনীহা’।

প্রস্তাবিত এই আইনের উৎস খুঁজতে গিয়ে দেখা যায়, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৬০ (২) ঝ–এর প্রদত্ত ক্ষমতাবলে ‘তথ্য গোপনীয়তা ও সুরক্ষা বিধিমালা, ২০১৯’ শিরোনামে একটি বিধিমালা তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। সরকারের তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগ তার একটি খসড়া ২০১৯ সালে অনলাইনে প্রকাশও করে। এ খসড়া নিয়ে তখন নানা মহল থেকে আপত্তি জানানো হয়। পরে সরকারের পক্ষ থেকে খসড়াটি ‘অফিশিয়াল’ নয় বলে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

[ad_2]

Source link

Leave a Comment