জ্বালানি খাত বিনিয়োগকারী–দাতাদের কাছে জিম্মি

[ad_1]

সভায় এ বিষয়ে গবেষণার সারসংক্ষেপ উপস্থাপন করেন টিআইবির জ্যেষ্ঠ গবেষণা ফেলো মো. মাহফুজুল হক। সভায় বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের বিশেষজ্ঞ ছাড়াও বরিশাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, বাঁশখালী এস এস বিদ্যুৎকেন্দ্র এবং মাতারবাড়ী এলএনজি বিদ্যুৎকেন্দ্রের কারণে সরাসরি ভুক্তভোগীরাও অংশ নেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী বলেন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে সুশাসন নিশ্চিত করতে এ মুহূর্তে জাতীয় নীতি তৈরি করা প্রয়োজন। সেই নীতি হতে হবে বাংলাদেশের স্বপ্ন ও লক্ষ্যমাত্রাকে মাথায় রেখে। আইইপিএমপিও তৈরি হবে সেই জাতীয় নীতির আলোকে। এতে করে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে কোনো কমতি বা শূন্যস্থান থাকলে তা পূরণ করা সম্ভব হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীন পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসাইন বলেন, কাজ করলে কিছু ভুলত্রুটি থাকবেই। গঠনমূলকভাবে সেই ত্রুটি ধরিয়ে দেওয়া হলে পাওয়ার সেল সংশোধনে আগ্রহী। আইইপিএমপি নিয়ে বেশ কিছু পরামর্শ পাওয়া গেছে। সেসব গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনাও করা হবে।

[ad_2]

Source link

Leave a Comment