ইসলামে নাগরিকের রাজনৈতিক অধিকার | প্রথম আলো

[ad_1]

নিরাপদ ও শান্তির সমাজ নির্মাণে অতীব জরুরি হলো অপরাধ দমন ও ন্যায়বিচার। বিচার হতে হবে নিরপেক্ষ, হবে না পক্ষপাতদুষ্ট। বিচারের ন্যায়দণ্ড সবার জন্য হবে সমান। মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘আমার মেয়ে ফাতেমাও যদি চুরি করে, তবে তাঁর হাত কেটে দেওয়া হবে।’ (আবু দাউদ)

ইসলামি আইনে ন্যায়বিচার যেমন নিশ্চিত করা হয়েছে, তেমনি প্রত্যেক নাগরিকের মানবাধিকারও নিশ্চিত করা হয়েছে। বিচার যেন অবিচার না হয়; বিচারের নামে যেন প্রহসন না হয়; ধারণামূলক ও অজ্ঞতাপ্রসূতভাবে কারও বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ জন্য প্রতিটি অভিযোগ ভালোভাবে তদন্তপূর্বক তা প্রমাণিত হলে, অপরাধের মাত্রা পরিমাণে শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘হে ইমানদারগণ, তোমরা অধিকাংশ ধারণাপ্রসূত বিষয় থেকে বিরত থাকো; কেননা অধিকাংশ ধারণাই পাপ।’ (সুরা-৪৯ হুজুরাত, আয়াত: ১২)

যুগ্ম মহাসচিব, বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতি; সহকারী অধ্যাপক, আহ্ছানিয়া ইনস্টিটিউট অব সুফিজম

[email protected]

[ad_2]

Source link

Leave a Comment