কী প্রয়োজনে ‘জনতার সরকার’ | প্রথম আলো

[ad_1]

ওয়েবসাইটটিতে সরকারের বিভিন্ন কাজ সম্পর্কে মানুষ মতামত জানাতে পারবে। তবে কোন কোন বিষয়ে মতামত জানানো যাবে, তা সরকার ঠিক করবে। মূল গলদটা এখানেই। জনগণ কী কী বিষয়ে মতামত জানাবে, সেটা যদি সরকার ঠিক করে দেয়, তাহলে তারা খোলামনে কিছু লিখতে বা বলতে পারবে না।

সরকারের ইচ্ছাপূরণের কিংবা প্রশংসা শোনার ওয়েবসাইট হলে এর থেকে জনগণ কোনোভাবেই উপকৃত হবে না। গণমাধ্যমে প্রতিদিন জনজীবনের সমস্যা তুলে ধরা হয়; এর মাধ্যমে তাদের মতামত ও অভাব-অভিযোগের বিষয়টিও উঠে আসে। সরকারের নীতিনির্ধারকেরা যদি এসব আদৌ আমলে নিতেন, তাহলে জনগণকে পদে পদে ভোগান্তির শিকার হতে হতো না। এর জন্য জনগণের করের টাকা খরচ করে আলাদা করে ওয়েবসাইট খোলারও দরকার ছিল না।

বাংলাদেশের নাগরিকদের যাবতীয় তথ্য সুরক্ষা করার দায়িত্ব রাষ্ট্রের। কিন্তু আমরা উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ করছি, সরকার সব ক্ষেত্রে সেই সুরক্ষা দিতে পারছে না। অপরাধী চক্র হীন স্বার্থ উদ্ধারে অন্যের ছবি ও পরিচয় ব্যবহার করে ভুয়া পরিচয়পত্র তৈরি করছে।

তথ্যপ্রযুক্তিবিদেরা প্রথম আলোকে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে বলেছেন, মানুষের কী কী ব্যক্তিগত তথ্য নেওয়া হবে এবং তথ্যের গোপনীয়তা ও সুরক্ষা নীতিমালা অনুসরণ করা হচ্ছে কি না, তা দেখতে হবে। যে নীতিমালার আলোকে মন্তব্য মডারেট করা হবে, তাতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি না থাকলে জনগণের তথ্য লাভের অধিকার খর্ব হবে।

[ad_2]

Source link

Leave a Comment