বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা, দুর্ভোগ | প্রথম আলো

[ad_1]

পৌরসভার আওতাধীন অন্তত ৪০ কিলোমিটার সড়কই বর্ষাকাল এলে পানিতে ডুবে যায়। এর মধ্যে আবার ২৫ কিলোমিটার ভাঙাচোরা। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা শহরের নগুয়া, আলোরমেলা, নতুন স্টেডিয়াম ও পুরাতন কোর্ট এলাকার রাস্তাগুলোর। সামান্য বৃষ্টিতেই কয়েক বছর ধরে এসব এলাকায় রাস্তার ওপরে হাঁটুপানি জমে যাচ্ছে। পুরাতন কোর্ট এলাকায় রয়েছে জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কার্যালয়, জেলা শিশু একাডেমিসহ বেশ কটি সরকারি দপ্তর। এ ছাড়া পাশের আবাসিক এলাকায় হাজারো লোকের বসবাস। জলাবদ্ধতার দুর্ভোগ স্থানীয় বাসিন্দা ও সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিত্যদিনের সঙ্গী।

পুরাতন কোর্ট এলাকার বাসিন্দা নজরুল ইসলাম বলেন, জলাবদ্ধতার কারণে ঘর থেকে বের হওয়া কঠিন হয়ে যায়। ছেলেমেয়েরা বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়া করতে পারে না। এলাকার যা অবস্থা, তাতে যানবাহন চলা দায়। আবার পচা-নোংরা পানি মাড়িয়ে চলতে গেলে চর্মরোগে আক্রান্ত হতে হয়।

গত বুধবার কিশোরগঞ্জ শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, টানা বর্ষণে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে জনজীবন। শহরের কাচারিবাজার, বড়বাজার, পুরান থানা বাজার, আলোরমেলা এলাকা, নগুয়া, বত্রিশ, হয়বতনগর, পুরোনো কোর্ট এলাকা, হারুয়া, গাইটাল, নিউটাউন, নীলগঞ্জ রোড, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের খেলার মাঠসহ বিভিন্ন এলাকার সড়কগুলো বেহাল। প্রায় জায়গায় নালার পচা আবর্জনা রাস্তার ওপর জমে থাকা পানিতে মিশে আছে। আনাচকানাচে পানি জমে স্থায়ী জলাবদ্ধতায় রূপ নিয়েছে। শহরের বত্রিশ, সুইপার কলোনি, বড় বাজার, কাচারিবাজার, পুরান থানা, নগুয়া প্রথম মোড় এলাকায় রাস্তার ওপর আবর্জনা স্তূপ করে রাখা হচ্ছে।

[ad_2]

Source link

Leave a Comment