‘লিডারে’র নির্দেশে প্রার্থী | প্রথম আলো

[ad_1]

এদিকে, গতকাল বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ফারুক হোসেন মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শামীম হক ও সাধারণ সম্পাদক ইসতিয়াক আরিফ উপস্থিত ছিলেন। ফারুক হোসেন (৬১) ফরিদপুর শহরের হাবেলী গোপালপুর মহল্লার বাসিন্দা জাহিদ হোসেনের ছেলে। চেয়ারম্যান পদে আরও দুন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তাঁরা হলেন, এম এ আজিজ ও নূর ইসলাম সিকদার।

তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ১৫ সেপ্টেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই ১৮ সেপ্টেম্বর এবং প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ২৫ সেপ্টেম্বর। প্রতীক বরাদ্দ ২৬ সেপ্টেম্বর, আর ভোট গ্রহণ ১৭ অক্টোবর।

ভাঙ্গা, সদরপুর ও চরভদ্রাসন নিয়ে গঠিত ফরিদপুর-৪ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী ওরফে নিক্সন। স্থানীয় রাজনীতিতে সংসদ সদস্যের প্রতিপক্ষ হিসেবে রয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্যাহ। সাহাদাত হোসেন আগে কাজী জাফরউল্যাহর পক্ষে ছিলেন। দুই মাস আগে তিনি নিক্সন চৌধুরীর পক্ষে যোগ দেন।

বুধবার কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে হুঁশিয়ারি করে বলেন, ‘যুবলীগের যেকোনো স্তরের নেতা–কর্মী যদি বিদ্রোহী প্রার্থী বা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কাজ করেন বা প্রচার–প্রচারণা চালান বা দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেন, তাঁর বা তাঁদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

[ad_2]

Source link

Leave a Comment