পলিটেকনিকে পড়েছেন, অনেক বাধা পেরিয়ে এখন তিনি ফেসবুকের প্রকৌশলী

[ad_1]

সাহস করে একেবারে শূন্য থেকে প্রোগ্রামিংয়ের চর্চা শুরু করলাম। ল্যাবের কাজ শেষে রাতে আর ছুটির দিনগুলোকে কাজে লাগাতাম। কয়েক মাস চেষ্টার পর বুঝলাম, এখন আমি ইন্টারভিউয়ের জন্য প্রস্তুত।

একের পর এক প্রত্যাখ্যান

বড় বড় কোম্পানিগুলোতে আবেদন করা শুরু করলাম। শ খানেক আবেদন প্রত্যাখ্যান হওয়ার পর বুঝলাম, আমার রিজিউমি আর লিংকডইন প্রোফাইল খুব একটা জুতসই নয়। নানা চেষ্টার পর ইন্টারভিউয়ের ডাক এল ইন্টেল থেকে। দুই দফা ইন্টারভিউ পেরিয়েও চূড়ান্ত পর্বে গিয়ে বাদ পড়লাম। মনে হচ্ছিল, নাহ, এই রাস্তা আমার জন্য নয়।

এরপর একে একে রোকু, ফেডেক্স, নাইকি, স্ট্রাইপ, লিংকডইন, টেসলা, উবার, নানা জায়গায় ইন্টারভিউ দিলাম। প্রতিবারই ইন্টারভিউ ভালো হতো। মনে হতো, এবার হবে। ফলাফল একই। প্রত্যাখ্যান।

হতাশ হয়ে যখন সব ছেড়েছুড়ে দেব ভাবছি, তখনই একটা স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠানে চাকরির সুযোগ হলো। এদিকে পিএইচডির শেষ পর্যায়ে পৌঁছে গেছি। কিছুদিন পর ফেসবুক থেকে ইন্টারভিউয়ের ডাক পেলাম। সাত দফায় দীর্ঘ ইন্টারভিউয়ের পর ওরা জানাল, মেটা আপনাকে হেড অফিসে ইফোর সফটওয়্যার প্রকৌশলী হিসেবে চাকরির প্রস্তাব দিতে চায়।

আনন্দে আমি বাকরুদ্ধ হয়ে গিয়েছিলাম। আমি বিশ্বাস করি, আপনার ঘড়িতে যখন সময় হবে, তখন কেউ আপনাকে আটকাতে পারবে না।

[ad_2]

Source link

Leave a Comment