চট্টগ্রামে বিচারকের করা মামলায় জামিন পেলেন ২ পুলিশ কর্মকর্তা

[ad_1]

রায়ের পর্যবেক্ষণে বিচারক উল্লেখ করেন, কিশোরের মা সোনার বারের বৈধ কাগজপত্র দেখানোর পরও অহেতুক মামলা করে পুলিশ। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট রাজস্ব অফিস থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ না করে মামলার বাদী পুলিশ কর্মকর্তাকে বাঁচানোর জন্য মিথ্যা প্রতিবেদন দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

মামলার আরজিতে আরও বলা হয়, রায়ের পর্যবেক্ষণে উঠে আসে, ঘটনার দিন কিশোরের আত্মীয় এ এইচ এম সুমন শুল্ক বিধান না মেনে বাহরাইন থেকে দুটি সোনার বার নিয়ে আসেন। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকায় বিমানবন্দরে লাগেজ পরিদর্শক সুমনকে আটক করেন। পরে শুল্ক পরিশোধ করে সোনার বার দুটি নিজ হেফাজতে নিয়ে ওই কিশোরকে দেন তিনি।

[ad_2]

Source link

Leave a Comment