চবি ছাত্রলীগের অবরোধে আরও এক উপপক্ষের সংহতি

[ad_1]

এরপর বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরিয়াল বডির অনুরোধে দুপুর সাড়ে ১২টায় মূল ফটক খুলে দেন বিক্ষুব্ধ নেতা–কর্মীরা। তবে অবরোধ শিথিল কিংবা প্রত্যাহার করা হয়নি বলে জানিয়েছেন তাঁরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস ও শাটল ট্রেন চলাচলও স্বাভাবিক হয়নি।  

ফটক খুলে দেওয়ার বিষয়ে রেড সিগন্যাল উপপক্ষের নেতা ও শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি রকিবুল হাসান প্রথম আলোকে বলেন, ক্যাম্পাসে কোনো ক্লাস আর পরীক্ষা চলবে না। যেহেতু ক্লাস পরীক্ষা ১২টার মধ্যেই হয়, তাঁর ১২টার পর ফটক খোলা হয়েছে। আর শাটল ট্রেন, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীদের বাস চলাচল না করলে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকে, তাই এগুলো আপাতত চলতে দেওয়া হবে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের জরুরি সেবার প্রয়োজনে মূল ফটক খোলা দেওয়া হয়েছে।

[ad_2]

Source link

Leave a Comment