এশিয়ার ‘সুপার অ্যাপ’ জনপ্রিয়তার তুঙ্গে; অনুসরণ করে ইলন মাস্ক আনছেন ‘এক্স’

[ad_1]

টেকশহর কনটেন্ট কাউন্সিলর: ক্যাব ডাকা থেকে শুরু করে খাবারের অর্ডার দেয়া, বিল পরিশোধ এমনকি কোথাও অবকাশ যাপনে বুক করার মতো নানাবিধ কাজ একটি অ্যাপের মাধ্যমেই করা যায়। এ ধরনের অ্যাপকে সুপার অ্যাপ বলা হয়। গ্র্যাব ও উইচ্যাটের মতো সুপার অ্যাপগুলো বিগত কয়েক বছর ধরে এশিয়ার বিভিন্ন প্রান্তের মানুষের জীবন-যাপনের এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ। কিন্তু পশ্চিমা দেশগুলোয় এখন পর্যন্ত এ ধরনের সুপার অ্যাপের আবির্ভাব হয় নি। বিশ্বের শীর্ষ ধনী ইলন মাস্ক এক্স ডট কম নামে এ ধরনের অ্যাপস নিয়ে আসার পরিকল্পনা করছেন। এখন এটি পশ্চিমা বিশ্বে কেমন সফল হয় সেটিই দেখার বিষয়।

সিংগাপুরের সুপার অ্যাপ গ্র্যাব রাইড সেবা, খাবারের অর্ডার গ্রহন, পার্সেল পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত হয়। অনেকে আবার পার্সেল ও ডকুমেন্ট পাঠানো অথবা অনলাইনে কেনাকাটা করতেও গ্র্যাবের সহায়তা নেয়। এছাড়া বাস, ফেরির টিকেট কেনা, হোটেলের কক্ষ ভাড়া করা এমনকি বাড়িতে কারো কোভিড টেস্টও এই গ্র্যাবের সহায়তায় করা যায়। অ্যাপটির ফিন্যান্স সিস্টেমের মাধ্যমে এ সব সেবার জন্য অর্থ পরিশোধ করা যায়। আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট অথবা ক্রেডিট কার্ডে একটি ই-ওয়ালেটের লিংক থাকবে অথবা আপনাকে ইনস্টলমেন্ট পরিকল্পনা সাজিয়ে নিতে হবে যার মাধ্যমে অর্থ পরিশোধ করা যাবে। এগুলো ছাড়াও অ্যাপের মাধ্যমে সেবা গ্রহন করে পয়েন্টস জমিয়ে রাখা যায়; যেগুলো দিয়ে পরবর্তীতে অন্য কোন সেবা গ্রহনের অর্থ পরিশোধ করা যাবে।

ক্যাশলেস পেমেন্টের ক্ষেত্রেও এটি ব্যবহার করা যায়। যেমন আপনি কোন দোকানে এই অ্যাপের মাধ্যমে কিউআর কোড স্ক্যান করে কেনাকাটা করতে পারবেন অথবা অ্যাকাউন্টের সাথে যুক্ত একটি কার্ডও দেয়া হয়।

Techshohor Youtube

ইন্দোনেশিয়ার গোজেক থেকে শুরু করে ভারতের পেটিএম এমন অনেক সুপার অ্যাপ রয়েছে যেগুলো আরো ভিন্ন ভিন্ন ধরনের সেবা দিয়ে থাকে। যেমন- পার্লারে মেনিকিউর বুক করা, মোটরবাইকের জন্য জ্বালানীর অর্ডার দেয়া, স্বর্ণ কেনা।

দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় এই অ্যাপ প্রচুর ব্যবহৃত হয়। এখানকার এক-তৃতীয়াশ জনগন ইন্টারনেট ব্যবহার করে ও ৮৮ শতাশের হাতে স্মার্টফোন রয়েছে। এশিয়ার অরিজিনাল সুপার অ্যাপ হিসেবে পরিচিত চীনের উইচ্যাট। এই উইচ্যাট ইলন মাস্ককে একটি সুপার অ্যাপ তৈরি করতে উদ্বুদ্ধ করেছে বলে জানা গিয়েছে।

এটি মূলত একটি ম্যাসেজি ও সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম। তবে বিভিন্ন ধরনের সেবার পরিসর ও ব্যবহারকারীরর সখ্যার দিক থেকে এটি বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ অ্যাপ। শুধুমাত্র চীনেই অ্যাপসটির ১২৯ কোটি ব্যবহারকারী রয়েছে। উইচ্যাট চীনের বৃহত্তম পেমেন্ট নেটওয়ার্কগুলির অন্যতম। পণ্য ও সেবার মূল্য থেকে শুরু করে আরেকজনকে টাকা পাঠানোর ক্ষেত্রেও এই পেমেন্ট নেটওয়ার্কটি ব্যবহৃত হয়। গবেষণায় দেখা গিয়েছে চীনের ব্যবহারকারীরা তাদের জেগে থাকা সময়ের মধ্যে এক-তৃতীয়াংশই এই উইচ্যাটে কাটিয়ে দেয়। তবে সরকারের কঠোর নিয়ন্ত্রনে থাকা উইচ্যাটকে নজরদারি ও সেন্সরশীপের একটি টুল হিসেবেও দেখা হচ্ছে। রাজনৈতিকভাবে সবেদনশীল মনে হলে এখানে প্রকাশ করা ম্যাসেজ, পোস্ট ও এমনকি অ্যাকাউন্টগুলিও নিয়মিতভাবে ব্লক করা হয়।

২০২০ সালে উইচ্যাট নিজস্ব স্কোর সিস্টেম চালু করে। যেখানে ব্যবহারকারীরর অ্যাপ ক্রেডিট রেকর্ড ভালো হলে সে অতিরিক্ত সুবিধা পেয়ে থাকে।

সুপারঅ্যাপগুলোয় কয়েকটি প্লাটফর্মে প্রায় সবকিছু পাওয়ার সুবিধার মধ্যে কিছু অসুবিধাও রয়েছে। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে এসব অ্যাপের অনেক প্রভাব। ব্যাক্তি গোপনীয়তা খুবই মূল্যবান। এ অবস্থায় ডাটাগুলো কিভাবে ব্যবহার করা যায় ও এটিতে সরকারের কি পরিমান অ্যাকসেস থাকবে তা সমাজে বড় বিতর্ক সৃষ্টি করতে পারে।

যদিও অন্যদের জন্য একটি অ্যাপের মাধ্যমেই জীবনযাত্রা সহজ করার সুযোগের কারনে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এছাড়া ব্যাক্তিগত গোপনীয়তা নিয়ে উদ্বেগ থাকলে এখান থেকে বের হয়ে যাওয়ারও সুযোগ রয়েছে।

মুক্তবাজারে এই বিশেষায়িত অ্যাপগুলো ব্যবহারকারীদের মনযোগ আকর্ষণে লড়াই অব্যাহত রাখবে। কারণ এখানে শুধুমাত্র একটি অথবা দুটি কোম্পানির আধিপত্য করার সুযোগ নেই। চীনে উইচ্যাটের একচেটিয়া আধিপত্যের অন্যতম কারন এখানে টুইটার ও হোয়াটসঅ্যাপের মতো অ্যাপগুলো ব্লক করা।

আরএপি



[ad_2]

Source link

Leave a Comment